ভয় পাওয়াটা খুব সহজ যদি মন থেকে দুর্বল হয়ে পড়েন।
-বোকা হওয়াটা অনেক সস্তা যদি নিজেকে সবসময় গুটিয়ে রাখেন।
–বিফল হওয়াটা আরও সহজ যদি সফলতার রাস্তা থেকে নিজেকে সরিয়ে আনেন।
উপরের কথাগুলো নেতিবাচক যা আমাদের কখনোই কাম্য নয়। এবার সত্যি করে নিজেই নিজের হিসাব নিন তো—-
১। আপনি কতবার সফল হতে চেয়েছেন?
২। কতবার সফল হবার জন্যই কাজ করেছেন?
৩। জেনেছেন “পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি”- তবে আপনি কতবার এই ছোট্ট কথাটি বিশ্বাস করে পরিশ্রমী হয়ে উঠেছেন ?
৪।হাজারবার শুনেছেন -“পৃথিবীকে বদলে দিতে নিজেকে বদলে দাও”, আপনি কি সত্যিই আজও বদলেছেন?
৫।স্বপ্ন আছে অনেক, একবারও কি সেই স্বপ্নপুরণেই কাজ করেছেন?
৬।ভাগ্যকে দোষ দিতে চান, একবারও কি সেই ভাগ্য রচনায় মনোযোগ দিয়েছেন?
—–উত্তর যেমনটাই হোক…জেনে রাখুন, যেদিন হতে উপরের প্রশ্ন গুলোর প্রতিটির ব্যাপারে শতভাগ সঠিক উত্তর দিতে পারবেন, সেদিন থেকেই আপনার সফলতার গল্পের সূচনা হবে। আর যারা চলতে চলতে ক্লান্ত, তারা হতাশার সাগরে না ডুবে স্মরণ করুন জগত-বিখ্যাতদের সংগ্রামের দিনগুলোর কথা। পৃথিবীতে এমনও মানুষ আছেন যাদের থলেতে ১০০০বারও বিফল হবার গল্প রয়েছে!!
সুতরাং ধৈর্য ধরুন, কী করেছেন বা কী হয়েছে তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ হল বর্তমান। কেননা এর থেকেই আসবে আগামির ভবিষ্যত!! তাই ভবিষ্যৎকে সাজাতে তৎপর হোন এখনই।
সবসময় আল্লাহর উপর ভরসা রেখে নিজেকে বলুন-“আমি পারবো, আমাকে পারতেই হবে”!!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *